শিরোনাম:

সোমবার, ৩ জুলাই, ২০২৩

মৌমাছির জীবন প্রণালী

 দৈনিক মাতৃভূমির সময়,

৪ জুলাই ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, 

২০ আষাঢ় ১৪৩০ বঙ্গাব্দ,

                                ছবি সংগৃহীত 
নিজস্ব প্রতিবেদক মোঃ খাইরুল ইসলাম : প্রত্যেকটি মৌচাকে মৌমাছিরা বসতিবদ্ধ হয়ে একটি বড় পরিবার বা সমাজ গড়ে বাস করে ৷ আকার ও কাজের ভিত্তিতে মৌমাছিরা তিন সম্প্রদায়ে বিভক্ত:
  1. রানি মৌমাছি যা একমাত্র উর্বর মৌমাছি
  1. ড্রোন বা পুরুষ মৌমাছি
  1. কর্মী মৌমাছি বা বন্ধ্যা মৌমাছি

বুদ্ধি

মৌমাছির চাকের গঠন ষড়ুভুজাকার হওয়ায় গবেষকেরা ভাবতেন, মৌমাছি বুঝি জ্যামিতি জানে৷ বিস্ময়কর ভাবে গবেষণা করে দেখা গেছে মৌমাছিরা যোগ, বিয়োগ, গুন, ভাগ করতে পারে৷ 

গঠন:-মৌমাছির দেহ ত্রিখণ্ডিত,এদের দুই জোড়া ডানা রয়েছে। এদের দেহের মাপ ১-১.৫ সেন্টিমিটার(প্রায় ½ ইঞ্চি থেকে ¾ ইঞ্চি

মধুসম্পাদনা

প্রস্ফুটিত ফুলের মকরন্দ অথবা ক্ষরণ কিংবা ফুল ব্যতীত গাছের অপর কোন জীবিত অংশ থেকে মৌমাছিদের দ্বারা সংগৃহীত, রুপান্তরিত অথবা নিজেদের ক্ষরিত পদার্থের মিশ্রিত সঞ্চিত অথবা পরিণত হবার জন্য মৌচাকে মজুত করা তরল, সান্দ্র অথবা কেলাসিত পদার্থ হল মধু।

মৌচাকসম্পাদনা

মৌচাক হলো মৌমাছির আবাসস্থল। এটি তৈরী হয় মোম জাতীয় পদার্থ দিয়ে। মৌচাকে ক্ষদ্র ক্ষুদ্র ষড়ভূজ প্রকোষ্ঠ থাকে৤ মৌমাছি এসব প্রকোষ্ঠে মধু সঞ্চয় করে। এছাড়া ফাঁকা প্রকোষ্ঠে মৌমাছি ডিম পাড়ে, লার্ভা ও পিউপা সংরক্ষণ করে। মৌমাছি নিজেই দেহাভ্যন্তরে মোম তৈরী করে। এই মোম প্রকৃতপক্ষে ফ্যাটি এসিডের ইস্টার। এর রাসায়নিক সংকেত হলো C15H31COOC30H61

পরাগায়ণসম্পাদনা

ফুলে ফুলে ঘুরে বেড়ানোর সময় মৌমাছিরা তাদের পা এবং বুকের লোমের ফুলের অসংখ্য পরাগরেণু বয়ে বেড়ায়। এক ফুলের পরাগরেণু অন্য ফুলের গর্ভমুণ্ডে পড়লে পরাগায়ণ ঘটে, যার ফলশ্রুতিতে উৎপন্ন হয় ফল। এভাবে মৌমাছিরা পরাগায়ণের মাধ্যম হিসাবে কাজ করে ফল ও ফসলের উৎপাদন বাড়ায়।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন